সোমবার, জুলাই ১৩, ২০২০ || ২৯ আষাঢ়, ১৪২৭ || ২২শে জিলকদ, ১৪৪১ হিজরি

রিং বন্ধ করতে সিজদা থেকে উঠা যাবে কি? (পর্ব-৩)


জামাতে নামাজ পড়ার সময় সিজদারত অবস্থায় রিং বেজে উঠলে কেউ কেউ সিজদা থেকে উঠে বসার প্রায় কাছাকাছি গিয়ে পকেট থেকে মোবাইল বের করে রিং বন্ধ করে থাকে।

আরো দেখুন >>> নামাজ ও মোবাইল প্রসঙ্গ… নামাজে দু’হাত ব্যবহার ব্যতীত রিং বন্ধ করা সম্ভব না হলে করণীয় পর্ব- ২

অথচ তখনো ইমাম মুসল্লি সবাই সিজদাতেই থাকে। এভাবে রিং বন্ধ করার দ্বারা তিন তাসবিহ পরিমাণ সময় ব্যয় না হলেও নামাজ ভেঙ্গে যাবে। কারণ যেখানে দুই হাতের ব্যবহারকেই নামাজ ভঙ্গের কারণ বলা হয়েছে সেখানে গোটা দেহকে নামাজের অবস্থা থেকে সরিয়ে নিয়ে আসা নিঃসন্দেহে নামাজ ভঙ্গের কারণ হবে। তাছাড়া এ অবস্থায় কেউ তাকে দেখলে সে নামাজে নেই বলেই মনে করবে। যা আমলে কাসীরের অন্তর্ভুক্ত। আর একথা পূর্বেই আলোচিত হয়েছে যে, আমলে কাসীর নামাজ ভঙ্গের অন্যতম কারণ।

সূত্র: (আল বাহর্রু রায়েক, ২য় খণ্ড, পৃষ্ঠা : ১১-১২ # খুলাসাতুল ফাতওয়া, ১ম খণ্ড, পৃষ্ঠা : ১২৯ # ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া, ১ম খণ্ড, পৃষ্ঠা : ১০৫ # শরহে নববী, ১ম খণ্ড, পৃষ্ঠা : ২০৫ # রদ্দুল মুহতার, ১ম খণ্ড, পৃষ্ঠা : ২৬৪, ২৬৫, ৬২৪)।

৪র্থ পর্বে যা থাকছে- একই নামাজে কতবার রিং বন্ধ করা যাবে?

Sharing is caring!

শেয়ার করুনঃ
shares